ঘরোয়া ব্যবসা আইডিয়া

ঘরোয়া ব্যবসা ব্যবসা ছোট ব্যবসা টাকা ছাড়া ব্যবসা ব্যবসার আইডিয়া অনলাইনে ব্যবসা পার্ট টাইম জব বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা গ্রামে লাভজনক ব্যবসা সাপ্লাই ব্যবসা লস ছাড়া ব্যবসা দৈনিক আয়ের ব্যবসা ছাত্রদের জন্য ব্যবসা কাপড়ের ব্যবসা ব্যবসায় উদ্যোগ

ঘরোয়া ব্যবসা আইডিয়া

ঘরোয়া ব্যবসা এখন যে সময় এই সময় কিন্তু আপনি চাইলে ঘরে বসে ব্যবসা শুরু করতে পারেন । আপনাকে ব্যবসা শুরু করার জন্য শুধুমাত্র একটি কম্পিউটার বা একটি মোবাইলের প্রয়োজন হবে এবং সাথে ইন্টারনেট থাকতে হবে । এ থাকলে আপনি কিন্তু ঘরে বসেই ব্যবসা করতে পারেন ঘরোয়া ব্যবসা গুলো । আমি আজকে আপনাদের সাথে ঘরোয়া ব্যবসা যে গুলো রয়েছে সেগুলো নিয়ে আলোচনা করব ।

যেহেতু এখনকার সময় মহিলারা ঘরের মধ্যে বসে ব্যবসা গুলো পড়তে পারে সেতু দিনদিনই এ ব্যবসা চাহিদা বাড়ছে । এতে পুঁজি করার জন্য তেমন বেশি অর্থ প্রয়োজন হয় না । কষ্ট অনেক কম হয় আর যদি সঠিকভাবে ব্যবসা করা যায় তাহলে কিন্তু ভালো পরিমাণে একটি রেভিনিউ তৈরি করা যায় । ঘরোয়া ব্যবসা যেগুলো রয়েছে সেগুলো আপনি সর্বপ্রথম ছোটখাটো হিসেবে শুরু করতে পারেন । কিন্তু পরবর্তীতে আপনি চাইলেই এ ব্যবসা গুলোকে বড় একটি ব্যবসায় রূপান্তর করতে পারেন ।

অবশ্যই এটা পরিবর্তন আপনার পরিশ্রম এর উপরে নির্ভর করে । আপনি যদি ভাল পরিশ্রম করে ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন তাহলে দেখা যাবে ব্যবসাটি খুব দ্রুত লাভবান হয়ে দাঁড়াবে । কোন একটি ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে অবশ্যই ভালো পরিমাণে পরিশ্রম করতে হবে । কঠোর পরিশ্রম ছাড়া কোন ব্যবসায় কে উচ্চতর লেভেলে নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয় । আপনাকে কাজগুলো কৌশলের মাধ্যমে সম্পন্ন করতে হবে । অর্থাৎ আপনি আপনার ব্যবসার জন্য যেসকল কাজগুলো করবেন সেগুলো অবশ্যই কোন না কোন কৌশলের অবিলম্বে হতে হবে । সহজ কথায় বলতে গেলে আপনার ব্যবসার জন্য যেসকল কাজগুলো করবেন সেগুলো স্মার্ট ভাবে করতে হবে আপনাকে ।

আপনার যে সকল ক্রেতাগণ থাকবে তাদের সাথে অবশ্যই সততা বজায় রেখে ব্যবসা । একটা কথা মনে রাখবেন মানুষের বিশ্বাস কে সব সময় সবার উপরে রাখতে । বিশ্বস্ত তা বজায় রেখে ব্যবসা করতে হবে । আপনার ক্রেতাদের সাথে ভালো ব্যবহার আপনাকে করতে হবে । আপনাকে সব সময় পেয়ে তাদের নিয়ে ভাবতে হবে নতুন কোন জিনিসকে ক্রেতারা চায় । এ সকল বিষয়ের উপর আপনার নজরদারি রাখতে হবে । আপনার যে সকল কম্পিটিটর থাকবে তাদের উপরও আপনার নজরদারি রাখতে হবে । অবশ্যই চেষ্টা করবেন একটু কম দামে ভালো পণ্য বিক্রি করার ।

তাহলে চলুন আমরা এখন আপনার সাথে আলোচনা করে ঘরোয়া ব্যবসা সম্পর্কে । আপনি বাসায় বসে কোন কোন ব্যবসা গুলো করতে পারেন সে সম্পর্কে আমরা এখন আলোচনার করব ।

ঘরোয়া ব্যবসা আইডিয়া

ঘরোয়া ব্যবসা আইডিয়া গুলো :-

আমি এখন আপনাদেরকে যেসকল করা ব্যবসার আইডিয়া দেবো সেগুলো আপনি খুবই অল্প অর্থ নিয়ে শুরু করতে পারেন । আবার কিছু কিছু ব্যবসা রয়েছে যেগুলো আপনি খুবই অল্প পরিমাণে অর্থ নিয়ে শুরু করতে পারবেন এককথায় বলতে গেলে সেগুলো বিনা অর্থে আপনি ব্যবসা গুলো করতে পারেন ।

ব্লগিং ব্যবসা :-

ঘরে বসে কাজ করার জন্য সবচেয়ে উপযোগী হয়েছে ব্লগিং । ব্লগিং হচ্ছে এমন একটি কাজ যেটার মাধ্যমে আপনি ঘরে বসে অর্থোপার্জন করতে পারবে । এত বেশি কষ্ট করতে হয় না আপনাকে । প্রতিদিন কয়েক ঘণ্টা যদি টাইম দেন তাহলে কিন্তু আপনার ব্লগিং করার জন্য বা ব্লগিং সাইট থেকে উপার্জন করার জন্য যথেষ্ট । এর কারণ হচ্ছে আপনি ঘরে বসেই প্রতিদিন আপনার ব্লগ এর মধ্যে কোন কোন কিছু আর্টিকেল পোস্ট করবেন ।
অবশ্যই আপনাকে কোন না কোন বিষয়ের উপরে অভিজ্ঞ হতে হবে । যে বিষয়ে আপনি আর্টিকেলগুলো লিখবেন । চেষ্টা করবেন আপনার যেসকল বিষয়ের উপরে অভিজ্ঞতা রয়েছে সে সকল বিষয়ের উপরে আর্টিকেল লেখার । আপনার আর্টিকেলগুলো এমন হতে হবে পাঠক সহজভাবে আপনার আর্টিকেল গুলো পড়তে পারে ।

কিছুদিন যাবত যদি কষ্ট করেন তাহলে কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটের মধ্যে খুব সহজে ট্রাফিক আসা শুরু করবে । আপনার ওয়েবসাইটের মধ্যে যদি ভালো পরিমাণে ট্রাফিক আসে তাহলে কিন্তু আপনি সেই ওয়েবসাইটকে মনিটাইজেশন করে গুগল এডসেন্স তারা অর্থ উপার্জন করতে পারবেন । আপনি যদি হিস পাশাপাশি এফিলিয়েট মার্কেটিং করেন তাহলেও ভালো পরিমাণে উপার্জন হবে । ব্লগিং করার মাধ্যমে আপনি কিন্তু প্রতি মাসে ভালো পরিমাণে একটি অর্থ উপার্জন করতে পারো ।

ইউটিউবিং :-

আপনি যদি ইউটিউবিং করেন তাহলে কিন্তু আপনি ঘরে বসেই এ কাজটি করতে পারেন । ইউটিউবিং করার জন্য আপনাকে কিন্তু বেশি পরিমাণ এর অর্থ খরচ করতে হবে না । এক কথায় বলতে গেলে ইউটিউবিং করতে গেলে আপনার তেমন বেশি পরিমাণ এর অর্থ খরচ হবে । আপনার কোন পরিমাণ এর মূলধন না থাকলেও কিন্তু আপনি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে সেখানে ভিডিও আপলোড করতে পারেন ।

ইউটিউব করার জন্য প্রতিদিন আপনাকে কিছু পরিমাণ টাইম দিলে হবে আপনি চাইলে কোন চাকরির পাশাপাশি পার্টটাইম হিসেবেও ইউটিউবিং ধরে নিতে পারেন । আপনি যে বিষয়ের উপরে অভিজ্ঞ রয়েছেন সেই বিষয়ের উপরে ভিডিও তৈরি করে মানুষের সেবা করাই আপনার কাজ হবে । যাতে করে আপনার ভিডিও দেখে হয় ইন্টারটেইনমেন্ট হবে আর নয়তবা আপনার ভিডিও দেখে কিছু শিখবে ।

এমন অনেকেই রয়েছে যারা ইউটিউবে করে ভালো একটি পরিমাণে অর্থ উপার্জন করে যাচ্ছে । এবং অনেক ভালো ভালো চাকরি ও তারা ছেড়ে দিয়েছে শুধুমাত্র ইউটিউবিং করার জন্য । অর্থাৎ বুঝা যাচ্ছে যে ইউটিউব এর মধ্যে কিন্তু যদি ভালোভাবে করা যায় তাহলে ভালো পরিমাণে অর্থ আয় করা সম্ভব । আপনি চাইলে আপনার চ্যানেল যখন বড় হয়ে যাবে তখন আপনার অন্য চাকরি ছেড়ে ফুলটাইম ইউটিউবকে দিতে পারেন ।

আপনার যত বেশি অডিয়েন্স থাকবে আপনি তত বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারবে । বিভিন্ন কোম্পানির প্রমোট করে অর্থ উপার্জন করতে । আপনি যদি চান তাহলে কিন্তু অনেক ধরনের পণ্য নিয়ে কাজ করতে পারেন। অর্থাৎ আফিলিয়েট মার্কেটিং এর কাজটি আপনি করতে পারেন । সব কথার শেষ কথা আপনার ইউটিউব এর মধ্যে যত বেশি ভিউ হবে আপনি তত বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন ।

যত বেশি লোককে আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিও গুলো দেখবে ততো বেশি আপনাকে কিন্তু অর্থ উপার্জন হবে আপনার এফিলিয়েট মার্কেটিং করলে আপনার মার্কেটিং অনেক লোকের কাছে পৌঁছে যাবে । এবং আপনি যদি ইউটিউব এডসেন্স থেকে উপার্জন করতে চান তাহলে কিন্তু আপনার অনেক বেশি অডিয়েন্সের প্রয়োজন হবে । যত অডিয়েন্স আপনার ভিডিও দেখবে ততো বেশি আপনার কিন্তু বিজ্ঞাপন প্রদর্শন হবে । আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন ইউটিউব থেকে কিভাবে অর্থ উপার্জন করা ।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বিজনেস :-

আপনি চাইলে কিন্তু অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের যে ব্যবসাটি রয়েছে সেটি করতে পারেন । এফিলিয়েট মার্কেটিং করা হয় মূলত অন্যের পণ্য বা সার্ভিস কে আপনি মার্কেটিং করবেন । আপনি যে মার্কেটিং ঠিক করবেন তার মাধ্যমে যদি কোন পণ্য বা সার্ভিস বিক্রি হয় তাহলে সেই বিকৃত অংশ থেকে আপনি কিছু পরিমাণ কমিশন পাবেন । এই কাজটা কিন্তু বর্তমানে অনেক রোগী করতেছে এবং এটি অনেক সফল ভাবে কাজ করতেছে । আপনার অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার জন্য সর্বোত্তম ট্রাফিকের প্রয়োজন হবে ।

আপনি চাইলে আপনার কোন একটি ব্লগ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এটি শুরু করতে পারেন । অথবা আপনি যদি চান তাহলে ফেসবুক পেজের মাধ্যমে শুরু করতে পারে । অথবা আপনি যদি চান তাহলে কিন্তু ইউটিউব এর মধ্যে যদি আপনার ভালো অডিয়েন্স থাকে তাহলে সেখান থেকে শুরু করতে । অবশ্যই মনে রাখবেন এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য আপনার কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণ এর অডিয়েন্স থাকতে হবে । আপনার কাছে যত বেশি অডিয়েন্স থাকবে আপনি তত বেশি অর্থ উপার্জন করে ।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এখনকার সময় স্টুডেন্টরাও অনেক বেশি করতেছে । এবং অনেক বড় বড় কোম্পানি রয়েছে যারা এফিলিয়েট মার্কেটিং করে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করে নিচ্ছে । আপনি এটি প্রথমত আপনার চাকরি বা পড়ালেখার পাশাপাশি করতে পারেন । পরবর্তীতে যখন দেখবেন আপনার কাজ ভাল হচ্ছে তখন কিন্তু আপনি চাইলে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবে ।

ডাটা এন্ট্রির কাজ :-

ঘরোয়া ব্যবসা হিসেবে  ডাটা এন্ট্রির কাজ আপনি ঘরে বসেই করতে পারবেন । এর প্রধান কাজ হল আপনার বিভিন্ন জায়গাতে বিভিন্ন ডাটাগুলো বসাতে হবে । অর্থাৎ কলিঙ্গ হসপিটালের যে সকল রেকর্ড রয়েছে সে রেকর্ডগুলো আপনাকে দেওয়া হবে এবং সেগুলোর সুন্দরভাবে সাজিয়ে দিবেন এটাই হচ্ছে কাজ । এমন অনেক লোকই আছে ডাটা এন্ট্রির কাজ করে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন ।

আপনি চাইলে ঘরে বসে আপনার অন্য কাজের পাশাপাশি এই ডাটা এন্ট্রির কাজ ঠিক করে নিতে পারেন । এর থেকে ভালো পরিমাণে একটি অর্থ উপার্জন হয় । আপনাকে বেশি পরিমাণ কষ্ট করতে হবে না আপনি যদি কম্পিউটারের শুধুমাত্র ব্যস্ত এগুলো জানেন তাহলে আপনি এই কাজটি করতে পারবে । অবশ্যই আপনার কাছে একটি কম্পিউটার এবং একটি ভাল ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে ।

টেইলারিং :-

আপনি যদি ঘরে বসে কাজ করতে চান তাহলে কিন্তু আপনার জন্য ঘরোয়া ব্যবসা হিসেবে টেইলারিং কাজ টি সবচেয়ে ভালো একটি কাজ হবে । আপনি চাইলে আপনার ঘরের মধ্যে টেলারিং মেশিন বসিয়ে কাজ করতে পারেন । এমন অনেক লোক রয়েছে যারা এ নিজের ঘরের মধ্যে টেলারিং মেশিন নিয়ে কাজ করে । আপনি চাইলে নিজেও করতে পারেন এই কাজটি । সর্বপ্রথম আপনার প্রয়োজন হচ্ছে একটি সেলাই মেশিনের । আপনার ঘরের মধ্যে অবশ্য একটি সেলাই মেশিন থাকতে হবে । আপনাকে অবশ্যই সেলাই মেশিনের কাজ গুলো জানতে ।

আপনি যদি সেলাই মেশিনের কাজ গুলো জানেন তাহলে কিন্তু আপনি বিভিন্ন জায়গা থেকে সেলাইয়ের যে সকল কাজ গুলো রয়েছে সেগুলো নিয়ে নিজের ঘরে করেন তাহলে কিন্তু ভালো করে এমন একটি অর্থ উপার্জনের সম্ভাবনা । যখন আপনার হাতে বেশি কাজ চলে আসবে তখন কিন্তু আপনি চাইলে আরও 2- 4 জন কর্মী নিয়ে আপনার ঘর এই কাজগুলো করতে পারেন ।

টিউশনি :-

ঘরোয়া ব্যবসা গুলোর মধ্যে এটি অন্যতম একটি ব্যবসা । টিউশনি করে আপনি কিন্তু ভালো পরিমাণে একটি রেভিনিউ তৈরি করতে পারেন । এর জন্য আপনাকে কিন্তু আপনার ঘরের একটি রুম এর মধ্যে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াতে হবে । আপনি যদি আপনার কোন একটি রুমের মধ্যে এক ঘন্টা করে একটি বিশ্বের 10 জন ছাত্র ছাত্রীদের টাইম দেন তাহলে কিন্তু আপনি একটা পেজ থেকে এক ঘন্টা টাইম দিয়ে প্রতিমাসে 5000 টাকা উপার্জন করতে পারবেন ।

টিউশন এই কাজটি করার জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম আপনার ঘরের এই যে কোন একটির নির্বাচন করে নিবেন । দেখবেন সেই রুমের মধ্যেই ছাত্র-ছাত্রীরা চলে আসবে । এবং সে রুমের মধ্যে আপনি যদি সঠিকভাবে আপনার ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াতে পারেন তাহলে কিন্তু প্রতিমাসে ভালো পরিমাণে উপার্জন করতে পারবেন । একটা কথা মনে রাখবেন আপনার যত বেশি স্টুডেন্ট হবে তত বেশি আপনি কিন্তু উপার্জন করতে পারবেন।

কম্পিউটার এবং মোবাইলের দোকান :-

আপনি চাইলে কিন্তু কম্পিউটার এবং মোবাইল রিপেয়ারিং এর একটি কোর্স করে আপনি নিজের ঘরে বসেই এই কাজটি করতে পারেন । আপনি চাইলে সোশ্যাল মিডিয়া গুলোর মধ্যে আপনার কাজের ভিডিও তৈরী করে আপলোড করতে পারেন । সেখান থেকেও ভালো পরিমাণে একটি সাড়া পাবেন আপনি । এখনকার সময় এমন অনেকেই আছে যারা ঘরে বসে কম্পিউটার ও মোবাইল রিপেয়ারিং এর ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে খুব সহজেই ।

এবং সে সকল লোকের হাতে সব সময় কাজে আসে । আপনি কিন্তু আলাদা করে পেমেন্ট করতে হচ্ছে না দোকান খরচ বা অন্য কোন কিছুর জন্য । এ কম্পিউটার এবং মোবাইল রিপেয়ারিং এর যে কাস্টিং হয়েছে ঠিকই কিন্তু আপনি ফুলটাইম হিসেবে করতে পারেন । একেকটা কম্পিউটার রিপেয়ার করে দেয়ার জন্য দেখা যায় এক থেকে দুই হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়ে দেওয়া হয় । এবং প্রতিটা মোবাইল খুললে 500 টাকা সর্বনিম্ন নেয়া হয় । আপনি যদি এই কাজটি করেন তাহলে কিন্তু আপনি ভালো পরিমাণে একটি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন খুবই অল্প সময় আপনার কাজের পিছনে দিলেও ।

আমাদের শেষ কথা :-

আমরা এয়ারটেলে মধ্যে আপনাদের সাথে আলোচনা করেছি ঘরের মধ্যে থেকে কোন কোন ব্যবসা গুলো করা যায় এ সম্পর্কে । আপনারা সম্পন্ন আর্টিকেলটি পড়েছেন এবং বুঝতে পেরেছেন কোন কোন বিষয়গুলো আপনার ঘরে বসে থেকেই করতে পারবেন । আশা করি এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনাদের অনেক বেশি উপকারে এসেছে ।

সম্পন্ন আর্টিকেলটি পড়ার জন্য আপনাদেরকে অনেক অনেক ধন্যবাদ । আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে জানতে পারেন আপনার সেই প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করি আপনাদেরকে জানাবো । ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন । আবার দেখা হবে এবং আপনাদের সাথে আবার আলোচনা করা হবে অন্য কোন বিষয় নিয়ে । আল্লাহ হাফেজ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *