অনলাইনে ব্যবসা আইডিয়া

ব্যবসা ছোট ব্যবসা টাকা ছাড়া ব্যবসা ব্যবসার আইডিয়া অনলাইনে ব্যবসা পার্ট টাইম জব বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা গ্রামে লাভজনক ব্যবসা সাপ্লাই ব্যবসা ঘরোয়া ব্যবসা লস ছাড়া ব্যবসা দৈনিক আয়ের ব্যবসা ছাত্রদের জন্য ব্যবসা কাপড়ের ব্যবসা

অনলাইনে ব্যবসা আইডিয়া

এখনকার সময় আপনারা চাইলেই কিন্তু অনলাইনে ব্যবসা  দিয়ে আপনাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুব ভালোভাবে চালাতে পারেন । আমরা সবাই কিন্তু অনলাইনের মধ্যে সংক্রিয় আছি । দেখা যাচ্ছে যত লোকজন অনলাইনের মধ্যে ঘোরাফেরা করে সবাই কিন্তু লাস্ট পর্যন্ত সোশ্যাল মিডিয়াতে একবার হল ভিজিট করে । এই কারণেই মূলত ব্যবসার অনেক বেশি অপরচুনিটি হয়ে গিয়েছে অনলাইনের মধ্যে ।
আপনি চাইলে কিন্তু ঘরে বসেই আপনার অনলাইনে ব্যবসা খুব সহজেই পরিচালনা করতে পারেন অনলাইনের মধ্যে রেখে ।

বাংলাদেশের মধ্যে চাকরির অবস্থা অনেক খারাপ । আপনি চাইলেই কিন্তু আপনার মনের মতো একটি চাকরি খুঁজে পাবেন না । আর যদি খুঁজে পান তাহলে কিন্তু সে চাকরি আপনাকে নেওয়ার জন্য মামা চাচার প্রয়োজন হবে । আপনার সঠিক দক্ষতা থাকলেও কিন্তু আপনি সে চাকরি এখন পাচ্ছেন না । এবং চাকরির সংখ্যাও অনেক কম রয়েছে যেখানে 10 জন লোক একটা চাকরির জন্য আবেদন করছে । সেই তুলনায় আপনি যদি ব্যবসা দিয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু আপনার সেখানে আরো লোকের কর্মসংস্থান হবে । এই কারণগুলোর জন্যই ব্যবসা হচ্ছে অন্যতম একটি সমাধান ।

অনলাইনের মধ্যে কিন্তু আপনি অনেক কম খরচেই আপনার ব্যবসাটি শুরু করে নিতে পারেন । শুধুমাত্র আপনাকে অনলাইন মার্কেট এর উপরে ভালোভাবে রিচার্জ করে নিতে হবে । আপনাকে জানতে হবে অনলাইন এর মধ্যে ব্যবসা করার কৌশল কেমন । কোন কৌশলের মাধ্যমে আপনি যদি ব্যবসা করেন তাহলে আপনার ব্যবসার উন্নতি লাভ হবে । যেমন আপনি কিন্তু অনলাইনের মধ্যে ব্যবসা করার জন্য বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া গুলো ব্যবহার করতে পারেন । আপনার ব্যবসার ক্যাটাগরি অনুযায়ী আপনি কিন্তু অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করতে পারেন । আপনার ব্যবসার ক্যাটাগরি হিসেবে আপনি কিন্তু আবার ওয়েবসাইট তৈরী করে নিতে পারেন । এসকল ক্যাটাগরিতে যদি আপনি কাজ করেন তাহলে কিন্তু আপনি অবশ্যই খুব দ্রুত আপনার ব্যবসাটিকে উচ্চতম স্থানে পৌঁছাতে পারবেন ।

এখন আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করবো কোন কোন বিষয়ে আপনাকে মাথায় রেখে অনলাইনের মধ্যে ব্যবসা করতে আসতে হবে এবং কোন কোন ব্যবসা গুলো অন্যান্যের মধ্যে আপনারা করতে পারেন ।

অনলাইনে ব্যবসা করার কৌশল গুলো :-

অনলাইনে ব্যবসা করার জন্য আপনাকে অবশ্যই কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হবে । আপনার দোকানে কেউ এসে সরাসরি প্রোডাক্ট নিবেনা অনলাইনের মধ্যে যদি আপনি ব্যবসা করেন । সেজন্য অবশ্যই আপনার প্রোডাক্ট গুলো কে সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলতে হবে অনলাইনের মধ্যে । এমনভাবে আপনি অনলাইনের মধ্যে আপনার প্রোডাক্ট গুলো সাজাবেন যাতে করে খুব সহজেই বুঝা যায় কোন জায়গায় কোন প্রোডাক্ট গুলো রয়েছে । একজন ক্রেতা যাতে করে খুব সহজেই সে প্রোডাক্ট অর্ডার করতে পারে আপনার কাছ থেকে । এখন আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করব কোন কোন উপায়ে আপনার অনলাইনের মধ্যে ব্যবসা করতে পারেন ।

সোশ্যাল মিডিয়া :-

আপনি কিন্তু চাইলে সোশ্যাল মিডিয়া গুলোর মধ্যে পেজ তৈরী করে সে সকল পেজের মধ্যে আপনার পণ্য বা সার্ভিস দিতে পারেন । আপনি মনে করেন ফেসবুকের মধ্যে আপনার ব্যবসাটি শুরু করবেন । এর প্রধান কারণ হচ্ছে ফেসবুকের মধ্যে এখনকার সময় সবচেয়ে বেশি ট্রাফিক রয়েছে । অর্থাৎ সবচেয়ে বেশি মানুষ রয়েছে ফেসবুকের মধ্যে । যেহেতু ফেসবুকের মধ্যে সকল ধরনের মানুষ রয়েছে আপনি চাইলে আপনার যেকোন ব্যবসাকে ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচালনা করতে পারেন বা প্রচার করতে পারেন ।

প্রথমত আপনাকে ফেইসবুক এর মধ্যে একটি প্রোফাইল তৈরি করতে হবে অর্থাৎ একটি পেজ তৈরী করে নিতে হবে । যেখানে আপনার অনলাইনে ব্যবসা ক্যাটাগরি অনুযায়ী আপনার পেজের নাম হবে এবং আপনার পেজটি প্রফেশনাল একটি পেজ হিসেবে তৈরি করবেন । চেষ্টা করবেন এমন ভাবে আপনার পেজটি তৈরি করতে যাতে করে কোনো ভিজিটর আপনার পেজ টি দেখে মনে হয় একটি প্রফেশনাল পেজ । অর্থাৎ আপনি লোগো ব্যানার এবং আপনার যে সকল ডেসক্রিপশন থাকবে সেগুলো সঠিকভাবে দিবেন । প্রয়োজনে কিন্তু আপনি যদি পারেন তাহলে একজন ফেসবুক মার্কেটিং এক্সপার্ট কে নিয়ে আপনি আপনার পেজটি কাস্টমাইজেশন করে নিবেন সুন্দরভাবে । এতে করে আপনার পেজ টি দেখতে অনেক প্রফেশনাল দেখাবে ।

সোশ্যাল মিডিয়া বলতে শুধুমাত্র যে ফেসবুক রয়েছে তা কিন্তু না আপনি চাইলে ইউটিউব ইনস্টাগ্রাম এবং আরো যেসকল সোশ্যাল মিডিয়া রয়েছে সেগুলোর মধ্যে আপনার ব্যবসাটি পরিচালনা করতে পারেন । আমি প্রথমেই বলেছি আপনার ব্যবসায় ক্যাটাগরি অনুযায়ী সে সকল জায়গাতে আপনার অনলাইনে ব্যবসা প্রচার করা প্রয়োজন সে সকল জায়গায় প্রচার করবেন । ফেসবুকের মধ্যে এমন অনেকেই রয়েছে যারা ব্যবসা করে স্বাবলম্বী হয়ে গিয়েছে । এবং শুধুমাত্র সোশ্যাল মার্কেটিং করেই তাদের ব্যবসাটি সুন্দরভাবে পরিচালনা করে যাচ্ছে । এই কারণে আপনি অবশ্যই সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করবেন আপনার ব্যবসার ক্ষেত্রে ।

অনলাইনে ব্যবসা আইডিয়া

ওয়েবসাইট :-

আপনি যদি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করেন আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য তাহলে অবশ্যই অনেক বেশি উপকারী দেবে । আপনি যদি ওয়েবসাইটের মধ্যে আপনার ব্যবসার যে সকল সার্ভিস বা পণ্য গুলো রয়েছে সেগুলো সুন্দর ভাবে সাজিয়ে রাখেন তাহলে আপনি কিন্তু অর্গানিক ট্রাফিক পাবেন । তাদের পণ্য ক্রয় করার প্রায় 70% সম্ভাবনা থাকে । এর প্রধান কারণ হচ্ছে তারা যখন কোন বিষয় নিয়ে সার্চ ইঞ্জিনের মধ্যে সার্চ করবে অবশ্যই তাদের প্রয়োজনে কারণেই তারা অনুসন্ধান করবে ।এই কারণে সে সকল লোকে প্রোডাক্ট নেওয়ার অনেক বেশি সম্ভাবনা থাকে ।

ওয়েবসাইট যদি আপনি তৈরি করেন তাহলে অবশ্যই আপনার অনলাইনে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের একটি মূল্য থাকবে । আপনি চাইলেই খুবই অল্প টাকায় একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে পারেন । অথবা গুগলের একটি সার্ভিস রয়েছে যেখানে মধ্যে আপনি বিনামূল্যে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিতে পারেন । অবশ্যই ভালো হবে আপনি যদি একটি ডোমেইন হোস্টিং ক্রয় করে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে নিন আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম রয়েছে সেই নাম অনুযায়ী । এবং একজন এসইও এক্সপার্ট কে রাখবেন যে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পণ্য গুলো রয়েছে বা সার্ভিস গুলো রয়েছে সেগুলো কে সার্চ ইঞ্জিনের সবার উপরে প্রদর্শন করানোর জন্য ।

ব্লগিং :-

আপনি কিন্তু চাইলেই ব্লগিং এর মধ্যে আপনার অনলাইনে ব্যবসা প্রয়োজনীয় যেসকল আর্টিকেল গুলো রয়েছে সেগুলো লিখে পোস্ট করতে পারেন । এতে করে সাধারণ লোকজনের অনেক বেশি উপকার হবে । বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে তারা জানতে পারবে । আপনার ব্যবসার জন্য কিন্তু অনেক বেশি কাস্টমার পাবেন। আপনি দেখবেন যদি কোন বিষয় নিয়ে অনলাইনের মধ্যে অনুসন্ধান করেন তাহলে কিন্তু আপনার সামনে আর্টিকেল ই অনেক বেশি আসে । অতএব আপনি যদি আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যে সকল পণ্য বা যে সকল সার্ভিস রয়েছে সেই সকল সম্পর্কে আর্টিকেল লিখেন তাহলে সেখান থেকে অবশ্যই আপনার কিন্তু অনেক বেশি পরিমাণে কাস্টমার আসবে ।

এতে করে আপনার ব্লগিং সাইট টা কিন্তু আপনি মনিটাইজেশন করে নিতে পারেন গুগল এডসেন্স তারা । এতে করে আপনি কিন্তু প্রতিটা ট্রাফিকের জন্য কিছু পরিমাণ এর অর্থ পাবেন । গুগল এডসেন্স মূলত বিজ্ঞাপন দ্বারা আপনাকে টাকা দিয়ে থাকে। আপনার ওয়েবসাইটের মধ্যে যত বেশি লোক হবে ততো বেশি আপনি টাকা পাবেন । অর্থাৎ সহজ কথায় বলতে গেলে আপনার ওয়েবসাইটের মধ্যে যত বেশি লোক আসবে সব লোকই কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটেমধ্যে যে বিজ্ঞাপনটি রয়েছে সেই গুলো দেখবে ।এতে করে আপনি দুই দিক থেকে ইনকাম করতে পারবেন ।

অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন :-

আপনি কিন্তু চাইলে একটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করে নিতে পারেন খুবই অল্প টাকার বিনিময় । যে সকল অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন ডেভলপাররা রয়েছে তাদেরকে দিয়ে । আপনার ব্যবসায় ক্যাটাগরি অনুযায়ী যদি অ্যাপ্লিকেশন তৈরি প্রয়োজন হয় তাহলে অবশ্যই তৈরি করে নিতে পারেন । অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করা যাতে অনেক সুবিধা হয় এবং অনেক সহজ পদ্ধতি হয় সেভাবে আপনি অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করে নিবেন । অবশ্যই আপনার অ্যাপ্লিকেশন টি গুগল প্লে স্টোর এর মধ্যে এভেলেবেল থাকতে হবে ।

আপনার অনলাইনে ব্যবসা ক্যাটাগরি অনুযায়ী কিন্তু আপনি খুব সহজেই একটি এপ্লিকেশন তৈরী করে সেটির মধ্যেই আপনার অনলাইনে ব্যবসা  পরিচালনা করতে পারেন । যেমন বাংলাদেশের মধ্যে অনেক অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে যারা তাদের ব্যবসা গুলো পরিচালনা করে যাচ্ছে । foodpanda , uber , pathao , আমি শুধুমাত্র কয়েকটি অ্যাপ্লিকেশনের নাম বলেছি এগুলো কিন্তু অনেক পরিমাণে অর্থ উপার্জন করে যাচ্ছে শুধুমাত্র অ্যাপ্লিকেশন এর মধ্যেই । আপনি চাইলে ভিন্ন আইডিয়া নিয়ে আপনার অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করে নিতে পারেন যেখান থেকে প্রতিনিয়ত লোকজনের কাজে আসে ।

অনলাইন ব্যবসার আইডিয়া :-

আমি এখন আপনাদেরকে বলবো কোন কোন অনলাইনে ব্যবসা গুলো আপনারা অনলাইনের মধ্যে করতে পারেন । অর্থাৎ অনলাইনের মধ্যে যে সকল অনলাইনে ব্যবসা আইডিয়া রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে আমরা আপনাদেরকে জানাবো । এবং সে ব্যবসা গুলি কিভাবে করতে হয় সেগুলো সম্পর্কে আপনারা অবগত হবেন । তাহলে চলুন আমরা আলোচনা করি ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে।

ই-কমার্স ওয়েবসাইট :-

আপনি চাইলে কিন্তু একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করে আপনার অনলাইনে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা করতে পারেন । আপনি যদি পণ্য বিক্রি করে থাকেন তাহলে অবশ্যই একটি ই-কমার্স সাইট আপনার প্রয়োজন এখানে আপনি কিন্তু খুব সহজেই পণ্যগুলো বিক্রি করতে পারেন । বাংলাদেশের মধ্যে কিন্তু এখন বর্তমানে ই-কমার্স সাইট নিয়ে একটি খারাপ ধারণা রয়েছে সকল মানুষের মধ্যেই । এখন বর্তমানে কোন ই-কমার্স সাইট যেমন প্রভাবশালী হয়ে উঠতে পারেনি । আপনি যদি সঠিক পরিকল্পনা এবং কাস্টমারদের সাথে সততা রেখে পণ্যগুলো বিক্রি করেন তাহলে কিন্তু খুব সহজে আপনার ই-কমার্স সাইট টি মানুষের কাছে পরিচিত লাভ করবে ।

অবশ্যই চেষ্টা করবেন সততার সাথে আপনার অনলাইনে ব্যবসা করার । এবং সঠিকভাবে মার্কেটিং করার । আমি উপরে যে সকল প্রথাগুলো বলেছি সেগুলো যদি আপনি এই ই-কমার্স সাইটের জন্য ব্যবহার করেন তাহলে কিন্তু অনেক বেশি উপকার হবে । আপনার ই-কমার্স সাইটের যে সকল পণ্য গুলো রয়েছে সেগুলো জেনও আপনি মার্কেটিং হিসেবে ফেসবুক , ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া গুলো ব্যবহার করতে পারেন । আপনার ই-কমার্স সাইট টি হচ্ছে একটি ওয়েবসাইট অর্থাৎ কেউ আপনার ওয়েবসাইটের মধ্যে তখনই আসবে যখন আপনি সঠিকভাবে প্রচারণা করতে পারবেন ।

অবশ্যই মনে রাখবেন একটি প্রতিষ্ঠান মার্কেটিং ওই প্রতিষ্ঠানের বিক্রি অনেক গুণে বাড়িয়ে দেয় । এজন্যই আপনাকে কিন্তু সঠিক ভাবে মার্কেটিং টা করতে হবে আপনার ই-কমার্স ওয়েবসাইট এর জন্য । আপনি কিন্তু খুবই অল্প টাকার বিনিময় ফেসবুক-ইউটিউব-গুগল এরমধ্যে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য প্রচারণা গুলো করতে পারেন । তাই চেষ্টা করবেন সঠিকভাবে আপনি আপনার ব্যবসার প্রচারণা গুলার করার । এতে করে আপনার কিন্তু অনেক দ্রুত বিক্রি বেড়ে যাবে । এই অনলাইনে ব্যবসা এখনো যেমন রয়েছে ভবিষ্যতে এর থেকেও অনেক বেশি বেড়ে যাবে । তো আপনি যদি ভবিষ্যতের চিন্তা করেন তাহলে কিন্তু এই ব্যবসাটি খুবই ভাল একটি অনলাইনে ব্যবসা ।

অনলাইনের মধ্যে কাপড় বিক্রি :-

আপনি কিন্তু চাইলে অনলাইনের মধ্যে কাপড় বিক্রি করতে পারেন । আপনারা সব সময় দেখেন ফেসবুকের মধ্যে বিভিন্ন লোকে এসে কাপড় বিক্রি করার জন্য কাপড়ের ভালো গুণ ও খারাপ গুন গুলো বলে থাক । সেখান থেকে কিন্তু ভালো পরিমাণের একটি বিক্রি হয় । প্রতিনিয়তই কিন্তু এমন ধরনের লাইভ স্ট্রিম করে থাকে । আপনার চোখের মধ্যে অবশ্যই পড়ে । এই বিষয়টা কিন্তু দারুণ একটি বিষয় । ফেসবুকের মধ্যে যেহেতু সব ধরনের মানুষ রয়েছে সেই কারণেই মূলত ফেসবুকের মধ্যে আপনি যদি লাইভ স্ট্রিম করেন কোন পণ্য নিয়ে আপনার কাপড়ে যে সকল পণ্য গুলো থাকবে সেগুলো নিয়ে তাহলে কিন্তু খুব সহজে আপনার বিক্রি করার সম্ভাবনা অনেক বেশি বেড়ে যায় ।

প্রতিনিয়ত হয় কিন্তু এই কাপড় গুলো বিক্রি হচ্ছে অনলাইনের মধ্যে । আর কাপড় হচ্ছে এমন একটি জিনিস যেটা মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের মধ্যে একটি । প্রতিনিয়তই কিন্তু মানুষের কাপড় কিনছে এবং প্রতিনিয়ত মানুষের কাছে নতুন নতুন কাপড়ের প্রতি যে আকাঙ্ক্ষা রয়েছে সেটি কিন্তু বেড়ে চলেছে ।

অবশ্যই আপনাকে রেগুলার যে সকল প্রোডাক্ট গুলো পাওয়া যায় সেগুলো নিয়ে কাজ করলে হবেনা আপনাকে অবশ্যই আনকমন যে সকল জিনিস গুলো রয়েছে সেগুলো নিয়ে কাজ করতে হবে । এবং প্রতিনিয়ত এই কাজগুলো চালিয়ে যেতে হবে । এই ব্যবসাটি এখন বর্তমানে অনেক বেশি রমরমা ভাবে চলতেছে । ভবিষ্যতে কিন্তু আরো বাড়বে । আপনি অনলাইনের মধ্যে কাপড় বিক্রি করার জন্য সহায়তা হিসেবে উপরে যে কথাগুলো বলেছি সেগুলো ব্যবহার করতে পারেন আপনি । এতে করে কিন্তু আপনার অনলাইনে ব্যবসা খুব সহজ ভাবে পরিচালনা করতে পারবেন ।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং :-

আপনি কিন্তু আপনার ঘরে বসেই ব্লগিং লিখে বা একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে সেই ওয়েবসাইটের মধ্যে অন্য ওয়েবসাইটে পূর্ণ গুলো বিক্রি করতে পারেন । এতে করে সেই পণ্যের বিক্রয় কৃত অংশের উপর আপনি কিছু অংশ কমিশন পাবেন । এটা এখনকার দিনে অনেক বেশি পপুলার হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে আপনি কিন্তু খুব সহজেই এই কাজগুলো করতে পারেন । অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে আপনি কিন্তু আরো ভালোভাবে জানতে পারেন ইউটিউব এর মধ্যে শুধুমাত্র সার্চ করে লিখবেন কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং করা যায় । তাহলে কিন্তু আপনি সকল বিষয় খুব ভালোভাবে জানতে পারবেন ।
অনলাইন কোর্স তৈরি করা :-

এই ব্যবসাটি হচ্ছে সবচেয়ে বেশি লাভজনক একটি অনলাইনে ব্যবসা আপনি কিন্তু চাইলে একটি অনলাইন কোর্স তৈরি করতে পারেন । এখানে কিন্তু ইনভেস্টমেন্ট খুবই কম এর প্রয়োজন হয় আপনি একটি কোর্স তৈরী করে সেই কোর্স বিক্রি করে সেখান থেকে কিন্তু ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন । আপনার কিন্তু ইনভেস্ট একবারই হবে আপনি শুধুমাত্র কোর্স তৈরি করার সময় যে ইনভেস্টি প্রয়োজন বা যে সময় এটি প্রয়োজন সেটি আপনার প্রথমবারেই ব্যয় হবে কিন্তু পরবর্তী সময় যতবারই বিক্রি করবেন ততোবারই আপনার কিন্তু লাভ হবে ।

অনলাইন কোর্স বি টি সবচেয়ে লাভজনক অনলাইনে ব্যবসা গুলোর মধ্যে একটি । এখানের মধ্যে কিন্তু রেভিনিউ আপনি 100% এরও বেশি পাবেন । এর জন্য অবশ্যই আপনাকে কি ভাবে কোর্স করেন করাতে হয় সে সম্পর্কে জানা থাকতে হবে । কিভাবে অনলাইনের মধ্যে মার্কেটিং করতে হয় সে ব্যাপারে কিন্তু আপনার ভালো একটি জ্ঞান থাকতে হবে । অবশ্যই এমনভাবে কোর্স তৈরি করবেন যাতে করে যে কেউ বা যেকোনো একজন নতুন শিক্ষার্থী আপনার পোস্ট গুলো শিখতে পারে । অনেকে কিন্তু শুধুমাত্র কোর্স বিক্রির এই ব্যবসাটি করেই মোটামুটি ভালো পরিমাণে একটি অর্থ প্রয়োজন করছে ।

ইউটিউব :-

আপনারা যেহেতু কোন অনলাইনে ব্যবসা চিন্তা ধারা রয়েছে আপনি কিন্তু ইউটিউবিং করতে । ইউটিউব এর মধ্যে ভিডিও তৈরি করার জন্য আপনার বেশি খরচ হবে না । আপনি কিন্তু চাইলেই বিভিন্ন ধরনের ভিডিও তৈরী করতে পারেন । আপনার বন্ধুদের নিয়ে ফানি ভিডিও তৈরি করে নিতে পারেন অথবা আপনার বন্ধুদের নিয়ে একটি সুন্দর প্রোগ্রাম তৈরি করতে পারেন । ইউটিউব থেকে প্রতিনিয়ত কিন্তু অনেক অর্থ উপার্জন করা যায় । আপনার যদি একটি ইউটিউব চ্যানেল হয় সঠিক ভাবে সেই ছেলেটি মানুষের দেখে তাহলে কিন্তু আপনি সেখান থেকে অনেকভাবেই উপার্জন করতে পারবেন ।

ইউটিউব এর মধ্যে ভিডিও তৈরি করে প্রতিনিয়ত অনেকে অনেক টাকা উপার্জন করছে । আপনি চাইলে আপনার চেয়ে বুদ্ধিমত্তা রয়েছে সেই বুদ্ধিমত্তা দিয়ে আপনি কিন্তু ভিডিও তৈরি করে খুব সহজ ইউটিউব থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন । ইউটিউবিং করার জন্য আপনার কিন্তু বেশি পরিমাণের জ্ঞান থাকতে হবে সেটাও না ।

কিন্তু একটা কথা অবশ্যই আপনাকে hard-working করতে হবে এবং আত্মবিশ্বাসী থাকতে হবে । একারণে আপনি কিন্তু ভালোভাবে কাজ করার মন মানসিকতা নিয়েই ইউটিউবিং করার জন্য আসবেন ।

আর্টিকেল সম্পর্কে মন্তব্য :-

আমরা আপনাদেরকে এখন বলার চেষ্টা করেছি কিভাবে অনলাইনের মধ্যে অনলাইনে ব্যবসা করতে হয়। এবং অনলাইনের মধ্যে অনলাইনে ব্যবসা কিছু আইডিয়া গুলো দিয়েছি । এগুলো যদি আপনারা সঠিকভাবে অনুসরণ করেন তাহলে কিন্তু আপনি খুব সহজেই একটি ব্যবসা দিতে পারবেন অনলাইনের মধ্যে ।

তাই অবশ্যই আপনারা উপরের যে সকল কথাগুলো আমি বলেছি সেগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনবেন এবং মনোযোগ দিয়ে পড়বেন । তাহলে কিন্তু আপনি অনলাইনের মধ্যে যে ব্যবসায়ী দিতে চান না কেন ভালো একটি পরিকল্পনা আপনার মাথায় চলে আসে ।

আমাদের শেষ কথা :-

আপনাদের অনেক অনেক ধন্যবাদ সম্পন্ন আর্টিকেলটি পড়ার জন্য।আশা করি আমরা যে সকল বিষয়গুলো আর্টিকেল এর মধ্যে বলেছি সেগুলো অবশ্যই আপনারা বুঝতে পেরেছেন । আর যদি কোন বিষয়ে আপনারা বুঝতে না পারেন বা কোন প্রশ্ন থাকে আপনার মাঝে তাহলে কিন্তু আমাদেরকে অবশ্যই কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন ।

আমরা সেই বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব আপনাদের সাথে । আজকের জন্য এখানেই বিদায় নিলাম । অন্য কোনদিন অন্য কোন ব্লগ নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হব । সেই পর্যন্ত ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আল্লাহ হাফেজ ।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *